গরুর পুজো করে শপথ নিলেন ধর্মনিরপেক্ষ ভারতের গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী

 

 

জীবনে প্রথমবার বিধায়ক। তাও আবার রেকর্ড ব্যবধানে জয়। তার চার বছরের মধ্যেই গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী হয়েছেন ভূপেন্দ্র প্যাটেল। সোমবার মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নিলেন তিনি। শপথ নিতে যাওয়ার আগে ‘গোমাতা’র পুজো সারলেন গুজরাটের নয়া মুখ্যমন্ত্রী। যা নিয়ে ইতিমধ্যে বিতর্ক মাথাচাড়া দিয়েছে।

 

এদিন মুখ্যমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। টুইটারে লেখেন, “মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার জন্য ভুপেন্দ্র প্যাটেলকে শুভেচ্ছা। আমি বহুদিন ধরে ওঁকে চিনি। ওঁর কাজ দেখেছি। গুজরাট সরকারের হয়ে যেমন উনি কাজ করেছেন, তেমনই সমাজসেবামূলক কাজও করেছেন তিনি। আশা রাখি উনি গুজরাটকে উন্নয়নের শিখরে নিয়ে যাবে। সমৃদ্ধ হবে গুজরাট।”

 

২০১৭ সালে আনন্দীবেন প্যাটেলের ছেড়ে যাওয়া বিধানসভা কেন্দ্রে প্রথম বার নির্বাচন লড়েন। প্রথম বার লড়েই রেকর্ড ভোটে জয় পান। এবার সেই প্রথম বারের বিধায়ক প্যাটেলই হলেন গুজরাটের নতুন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁকে টুইটারে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। লিখেছেন, ‘‌মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার জন্য ভূপেন্দ্র প্যাটেলকে শুভেচ্ছা। আমি বহুদিন ধরে ওঁকে চিনি। ওঁর কাজ দেখেছি। গুজরাট সরকারের হয়ে যেমন উনি কাজ করেছেন, তেমনই সমাজসেবামূলক কাজও করেছেন তিনি। আশা রাখি উনি গুজরাটকে উন্নয়নের শিখরে নিয়ে যাবেন। সমৃদ্ধ হবে গুজরাট।’‌ এদিন ভূপেন্দ্রর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে হাজির ছিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খাট্টার, গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী প্রমোদ সাওয়ান্ত এবং মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানও ছিলেন। এদিন শাহকে বিমানবন্দর থেকে আনতে গিয়েছেন গুজরাটের প্রাক্তন উপমুখ্যমন্ত্রী নীতীন প্যাটেল। শোনা গেছিল, বিজয় রুপানি পদত্যাগ করার পর তিনিই হচ্ছে নতুন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু খবর, মোদি–শাহ সিলমোহর দিয়েছেন ভূপেন্দ্রকেই। আসন্ন গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনে পতিদারদের খুশি করতেই নাকি এই পদক্ষেপ। নয়তো পতিদাররা কংগ্রেস নেতা হার্দিক প্যাটেলকেই সমর্থন করতে পারেন, আশঙ্কা বিজেপি–র। কারণ এমনিতে সংরক্ষণ নিয়ে তারা বিজেপি–র ওপর চটে রয়েছে। চলতি বছর এই নিয়ে বিজেপি শাসিত চতুর্থ রাজ্যে মুখ্যমন্ত্রী বদল হল। জুলাইতে কর্নাটকে বিএস ইয়েদুরাপ্পাকে মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে সরানো হয়েছে। উত্তরাখণ্ডে মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে সরানো হয় ত্রিবেন্দ্র রাওয়াতকে। সেই পদে বসেন তীরথ সিং রাওয়াত। চার মাস পর তিনিও সরে যান। ২০১৭ সালের শেষে গুজরাটে বিধানসভা নির্বাচন হয়। তার ১৬ মাস আগে ২০১৬ সালে তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী আনন্দীবেন প্যাটেলকে সরিয়ে মুখ্যমন্ত্রী করা হয় বিজয় রুপানিকে। এবার তাঁকেও সরানো হল।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *