ইসরায়েলকে এবার ১ কোটি ২০ লাখ ডলার অর্থ সাহায্য দিচ্ছে পশ্চিমা দালাল আমিরাত

নিউজ ডেস্ক : করোনাকালে অন্যান্য অনেক দেশের মতো ঝিমিয়ে পড়েছে ইসরায়েলের অর্থনীতি, যা দেখে সহ্য করতে পারছে না সংযুক্ত আরব আমিরাতের পশ্চিমা দালাল শাসকরা। তাই এই সঙ্কট উত্তরণে ইহুদিবাদী দেশটিকে ১ কোটি ২০ লাখ ডলার দিয়ে সাহায্য করছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু।

এই অর্থ দেওয়া হচ্ছে সংযুক্ত আরব আমিরাতের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ানের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে। তথ্যটি জানিয়ে ক্রাউন প্রিন্সকে ধন্যবাদও জানিয়েছেন নেতানিয়াহু।

কিছুদিন আগে ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ানের সঙ্গে বৈঠক হওয়ার কথা ছিল ইসরায়েলি প্রধানমন্ত্রীর। তার আমিরাত সফরের সব আয়োজনও সম্পন্ন করা হয়। একদম শেষ মুহূর্তে এসে সফরটি বাতিল করা হয়। পরে জানা গেছে, জর্ডান তার আকাশপথ ব্যবহারের অনুমতি না দেওয়ায় সফর বাতিল করা হয়েছে।

শুধুমাত্র অর্থসাহায্য নয় ইজরায়েলের ঝিমিয়ে যাওয়া অর্থনীতি পুনরুজ্জীবিত করতে সেখানে কোটি কোটি ডলার বিনিয়োগ করতে চলেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। উল্লেখ্য গত বছরে আরব বিশ্বের প্রথম দেশ হিসেবে সংযুক্ত আরব আমিরাত ইহুদিবাদী অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করে। তারপর তাদের চাপে ইজরায়েলের সঙ্গে একে একে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করেছে বাহারাইন সুদান এবং মরক্কো। সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং সৌদি আরবের তরফ থেকে পাকিস্তানকে ও ইসরায়েলের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করার জন্য চাপ দেয়া হচ্ছে বলে বিভিন্ন সূত্রে পাওয়া খবরে জানা গেছে। আসলে আরব-বসন্তের সময় থেকেই সংযুক্ত আরব আমিরাত সৌদি আরব কাতার কুয়েত বাহরাইন এর মত রাজতান্ত্রিক দেশ গুলিতে সাধারণ জনগণ দেশগুলোর স্বৈরাচারী শাসকদের শাসনের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলতে চাইছেন। স্বৈরাচারী শাসকরা সেই প্রতিবাদী কণ্ঠ স্তব্ধ করার জন্য পশ্চিমা শাসকদের এবং তাদের গুপ্তচর সংস্থা গুলির সাহায্য নিচ্ছেন। যার ফলে তারা অতিরিক্ত নির্ভরশীল হয়ে পড়েছেন পশ্চিমা দেশগুলোর ওপর। আর পশ্চিমা দেশগুলোর সবথেকে প্রিয় পুত্র ইজরায়েল সেই সুযোগ কাজে লাগিয়ে আরব বিশ্বের সঙ্গে নিজেদের সম্পর্ক গড়ে তুলে মুসলিম বিশ্বের কেন্দ্রে প্রবেশ করছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *